ধরুন, আপনাকে একটা সমস্যা সমাধান (Problem Solve) করতে দেয়া হল। এটা হতে পারে কোন একাডেমিক সমস্যা, কিংবা কর্মক্ষেত্রের কোন একটা সমস্যা। তো আপনি শুরু করবেন কীভাবে?

নতুন কোন সমস্যার সম্মুখীন হলে বেশিরভাগই চেষ্টা করেন, তারা আগে থেকে যেসব সমস্যা আর সেগুলো সমাধানের উপায় বা দক্ষতার সাথে পরিচিত সেগুলোর সাথে নতুন সমস্যা সমাধানের চেষ্টা করা। হয়ত, এভাবে শুরু করা যেতে পারে যখন আপনি নিশ্চিত যে, নতুন সমস্যার সাথে আগের সমস্যা গুলোর কিছুটা সামঞ্জস্য ছিল। কিন্তু যদি সমস্যাটা যদি ব্যতিক্রমী কিংবা একটু অস্বস্তিকর কিছু হয়, তাহলে এভাবে শুরু করলে ব্যর্থ হওয়া সুনিশ্চিত প্রায়। এক্ষেত্রে, শুরু করার সবচেয়ে ভাল উপায় হল, আপনি ধরে নিন যে, আপনি এই সমস্যা জীবনে কোনদিন দেখেন নি বা সমধান করেন নি।

মার্শাল আর্টের ভাষায় নতুন দৃষ্টিতে কোন কিছু দেখাকে বলা হয় “Beginner’s Mind” বা শিক্ষানবিস মানসিকতা। তো, যে শিক্ষানবিস সে তো আর জানে না, কোনটা গুরুত্বপূর্ণ আর কোনটা গুরুত্বপূর্ণ না। তাই সে পুরো সমস্যাটার সবকিছু বিস্তারিত জানার চেষ্টা করে। যারা অভিজ্ঞ, তারা তাদের অভিজ্ঞতাকে একটা ছাঁকনি হিসেবে ব্যবহার করে অগুরুত্বপূর্ণ ব্যাপার গুলো বাদ দিয়ে দেন। কিন্তু ভুল করে যদি কোন ভাবে তাদের এই ছাঁকনিতে কোন গুরুত্বপূর্ণ বিষয় বাদ যায়, তাহলে অনেক বিশেষজ্ঞরাও বড় ভুল করে বসেন।

শিক্ষানবিস মানসিকতা বা Beginner’s Mind কথাটা একটা বিষয় সব সময় মনে রাখতে বলে,অভিজ্ঞতা একটা দুই দিকে ধার দেয়া তলোয়ারের মত। এটা অপ্রয়োজনীয় বিষয় গুলো বাদ দিয়ে সমস্যা সমাধানের জন্য সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় গুলোতে মনোযোগ দিতে সাহায্য করে। কিন্তু এটা আপনাকে ব্যর্থতার পথে এগিয়ে নিয়ে যাবে যদি সমস্যাটা অভিজ্ঞতার বাইরে হয়। Chip আর Dan Health এই ব্যাপারটাকে বলেন, “The Curse of Knowledge” বা জ্ঞানের অভিশাপ। কখন অভিজ্ঞতা ব্যবহার করতে হবে আর কখন হবে না, এটা বোঝাই আসল কৌশল।

যদি নবীনের কৌতূহলী মন আর দর্শন এবং অভিজ্ঞ লোকের অভিজ্ঞতা কে একসাথে করা যায়, সেটাই সবচেয়ে ভাল। সব মিলিয়ে, এই দুই ধরনের দক্ষতা হতে পারে খুবই শক্তিশালি অপ্রতিরোধ্য এক সমাবেশ। এমন না যে, একজনকেই এটা করতে হবে। একটা দলেও হতে পারে। কিন্তু বর্তমানে, আমাদের সমাজে বা শিক্ষাব্যবস্থায় নবীন মনের কৌতূহলকে খুবই অবহেলার চোখে দেখা হয়, অনুৎসাহিত করা হয়, আর যে কারনে নতুন সমস্যা দেখলে বেশিরভাগ মানুষ ঘাবড়ে যায়। খুবই আশ্চর্যের ব্যাপার এই যে, আপনি আপনার কোন শিক্ষার্থী বন্ধুকে কোন প্রশ্ন করলে, সে প্রথমেই চিন্তা করবে এটা পরীক্ষায় আসবে কিনা বা এটা কোন বই থেকে করা হয়েছে। অথচ, বই এর কাজ সমস্যার সমাধান মুখস্ত করানো নয়, সমস্যা সমাধান কীভাবে করতে হয় তা শিখানো যাতে আপনি নিজে সমাধান করতে পারেন। এ অবস্থা থেকে বেরিয়ে এসে Beginner’s Mind পদ্ধতি অনুশীলন করলে অনেক কিছু উপলব্ধি করা, সমস্যা সমাধানে লেগে থাকা এবং Out of the Box চিন্তা করার শক্তি তৈরি হবে যা বাস্তব জীবনে খুবই প্রয়োজনীয়।

Bruce Lee এর বলা একটা ঘটনা দিয়ে শেষ করি –

একবার এক জাপানি Zen মাস্টারের কাছে একজন বিশ্ববিদ্যালয় প্রফেসর আসলেন যিনি Zen সম্পর্কে চান। তো মাস্টার কথার শুরু থেকেই লক্ষ্য করলেন, প্রফেসর সাহেব যতটা না Zen নিয়ে জানতে আগ্রহী তার চেয়ে মাস্টারকে নিজের মতামত আর জ্ঞান দিয়ে সন্তুষ্ট করতে আগ্রহী। তো মাস্টার ধৈর্য নিয়ে শুনলেন, তারপর বললেন, “চলুন, চা পান করা যাক।“ মাস্টার অতিথির কাপে চা দিতে দিতে একদম ভরে ফেললেন, কিন্তু এরপরও থামলেন না। প্রফেসর এই ঘটনা দেখে নিজেকে আর ধরে রাখতে পারলেন না। “কাপ তো ভরে গেছে, ওতে আর চা ধরবে না।” মাস্টার বললেন, “এই কাপের মত, আপনি আপনার মতামত আর ধারনায় পূর্ণ। আমি আপনাকে কীভাবে Zen শিখাব, যদি আপনি আপনার সেই কাপ খালি না করেন?”

 

| Jonathan G. Koomey রচিত “Turning Numbers into Knowledge” অবলম্বনে |

This Post Has One Comment

  1. Hey! Great article!

Leave a Reply